আজ ১৬ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১লা অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

আশাশুনির কেয়ারগাতী ঝুঁকিপূর্ণ বেড়ীবাঁধ।। যেকোন মুহুত্যে কয়েকটি গ্রাম প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কা

শাহিনুর ইসলামঃ সাতক্ষীরা জেলার আশাশুনি উপজেলার বড়দল ইউনিয়নের কেয়ারগাতি গ্রামের খেয়াঘাট সংলগ্ন বেড়ী বাঁধটি প্রায় নদীগর্ভে বিলিন হয়ে গেছে। গত কয়েক দিনের টানা বর্ষণে বেড়ীবাঁধে ফাটল ধরে নদী ভাঙ্গন বৃদ্ধি পেয়েছে। ভাঙ্গন ভয়াবহ আজকার ধারন করায় এলাকার জন সাধারণ রয়েছে সব সময় আতংকে। তা ছাড়া নদীতে স্রোত বাড়ায় ভাঙন দিন দিন তীব্র থেকে তীব্রতর হচ্ছে। 

বর্তমানে ১ফুট এর মতো ভেড়ীবাঁধ থাকায় স্থানীয়রা বেড়া দিয়ে রেখেছে যাতে জনগন চলাচল করে সর্বশেষ অংশটুকু ভেঙ্গে না যায়।
নদীতে পানি বৃদ্ধি ঘটলেই এলাকার মানুষের মধ্যে ভীতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। যেকোন মুহুত্যে বাঁধ ভেঙ্গে কেয়ারগাতী, জামালনগর, ডুমুরপোতা, খেড়ুয়ারডাঙ্গা, গোয়ালডাঙ্গা নড়েরাবাদ, ফকরাবাদসহ কয়েকটি গ্রাম প্লাবিত হতে পারে।

বাঁধটি ভাংতে ভাংতে এলাকার বড় একটি অংশ নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। বেতনা ও মরিচ্চাপ নদীর মোহনার কাছাকাছি পানি উন্নয়ন বোর্ডের গেয়ারগাতী এই বেড়ী বাঁধটি দীর্ঘকাল যাবৎ খুবই জরাজীর্ণ ও হুমকীগ্রস্ত। ইতিমধ্যে কয়েকবার বাঁধটি ভেঙ্গে বা উপচে এলাকা প্লাবিত হয়েছে। কিন্তু এ পর্যন্ত স্থায়ী বা টেকসই সংস্কার ও যথাযথ ভাবে বাঁধ পুনঃ নির্মানের ব্যবস্থা করা হয়নি। ফলে প্রতি বছর বাঁধটিতে ভাঙ্গন লেগেই আছে।

বাঁধটির আশু সংস্কার ও টেকসই বাঁধ রক্ষার কাজ করার বিষয়টি মাথায় নিয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মীর আলিফ রেজা ইং: ১৪-০৬-১৯ তারিখে জরাজীর্ণ বাঁধটি সরেজমিন পরিদর্শনে আসেন। তার একদিন পরে উপজেলা চেয়ারম্যান এবিএম মোস্তাকিম সাহেবের প্রতিনিধি হিসাবে উপজেলা আওয়ামীলীগের প্রচার ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক এবং বড়দল ইউপি চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী জগদীশ চন্দ্র সানার নিজিস্ব অর্থায়নে ভাঙ্গা অংশে প্রায় এক লক্ষাধিক টাকার বালু ভর্তি বস্তা ফেলানো হয় কিন্তু গত কয়েক দিনের টানা বর্ষণে বালুভর্তি বস্তাগুলো নদীগর্ভে বিলীন হয়েগেছে।
অবিলম্বে ভাঙ্গন রোধে টেকসই বাঁধের কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছেন এলাকাবাসি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর
error: Content is protected !!
%d bloggers like this: