আজ ১০ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৬শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

দেবহাটার গোল্ডেন কেবল টিভি নেটওয়ার্কের পরিচালককে মিথ্যা চাঁদাবাজী মামলায় গ্রেপ্তার

দেবহাটা প্রতিনিধি: ডিশ সংযোগ পরিচালনা নিয়ে বিরোধের জেরে ইউসুফ সরদার (৪৩) নামের এক ডিশ ব্যবসায়ীর দায়েরকৃত মিথ্যা চাঁদাবাজী মামলায় দেবহাটার গোল্ডেন কেবল টিভি নেটওয়ার্কের পরিচালক আশফাকুল ইসলাম মুন্নাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বৃহষ্পতিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) রাতে দেবহাটার চাঁদপুরস্থ বাসভবন থেকে সাতক্ষীরা সদর থানা পুলিশ গোল্ডেন কেবল টিভি নেটওয়ার্কের পরিচালক আশফাকুল ইসলাম মুন্নাকে গ্রেপ্তার করে। গত ১৫ সেপ্টেম্বর অপর প্রতিপক্ষ ডিশ ব্যাবসায়ী সাতক্ষীরার শিমুলবাড়ীয়া গ্রামের মৃত আব্দুস সবুর সরদারের ছেলে ইউসুফ সরদারের বাদী হয়ে দায়েরকৃত একটি চাঁদাবাজী মামলায় (নং-৪৭) আশফাকুল ইসলাম মুন্নাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে সদর থানা পুলিশ। এদিকে শুধুমাত্র ব্যবসায়িক বিরোধের জের হিসেবে প্রতিপক্ষ ডিশ ব্যবসায়ী ইউসুফ সরদারের দায়েরকৃত মিথ্যা চাঁদাবাজী মামলায় গোল্ডেন কেবল টিভি নেটওয়ার্কের পরিচালক আশফাকুল ইসলাম মুন্নাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে দাবী করেছেন তার স্বজনেরা। গোল্ডেন কেবল টিভি নেটওয়ার্কের অপর পরিচালক শহিদুল ইসলাম সহ গ্রেপ্তারকৃত আশফাকুল ইসলাম মুন্না’র স্বজনদের অভিযোগ, বাংলাদেশ টেলিভিশনের লাইসেন্স প্রাপ্তির পর ২০০৩ সাল থেকে দেবহাটা, কালীগঞ্জ, আশাশুনী উপজেলা সহ সদর উপজেলার ব্যাংদহা পর্যন্ত আশফাকুল ইসলাম মুন্না ও শহিদুল ইসলামের যৌথ পরিচালনায় গোল্ডেন ক্যাবল টিভি নেটওয়ার্কের মাধ্যমে ঘরে ঘরে স্যাটেলাইট চ্যানেলের ডিশ সংযোগ প্রদানের বৈধ ব্যবসা পরিচালনা করে আসছেন। সরকারী নির্দেশনা মোতাবেক প্রতি বছরেই বাংলাদেশ টেলিভিশন থেকে গোল্ডেন কেবল টিভি নেটওয়ার্কের লাইসেন্স নিয়মিত নবায়ন করেই ব্যবসা পরিচালনা করেন তারা। নির্দেশিত ফি আদায়ের মাধ্যমে কেবল টেলিভিশন নেটওয়ার্ক পরিচালনা আইন ২০০৬ এর অধীনে গত বছরের ৩০ এপ্রিল থেকে চলতি বছরের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্তও কেবল অপারেটর হিসেবে তাদের লাইসেন্স নবায়ন করে বাংলাদেশ টেলিভিন। যার লাইসেন্স নং সিও-১৭৫, এবং রেজিষ্ট্রেশন নং ১০১৮। এছাড়াও বাংলাদেশ টেলিভিশন থেকে লাইসেন্স প্রাপ্ত ফিড অপারেটর হিসেবে আশাশুনীর খাজরা ইউনিয়নে মিলন, রবিউল, সোহেল কেবল অপারেটর (লাই: এফও-৬২৩, রেজি: ১৮৮১), একই ইউনিয়নে নিরব কেবল নেটওয়ার্ক (লাই: এফও-০৮৫, রেজি: ১৬৬৫), কুল্যা ইউনিয়নে ভাই ভাই স্যাটেলাইট কেবল টিভি (লাই: এফও-১৪৮, রেজি: ১৫২৯), আনুলিয়া ইউনিয়নে ভাই ভাই স্যাটেলাইট (লাই: এফও-৭৬৬, রেজি: ১৬৬৪), বড়দল ইউনিয়নে সরদার ডিশ লাইন (লাই: এফও-১৪৩, রেজি: ১৫২৮) এবং ব্যাংদহা এলাকায় ফাহিম গাজী গোল্ডেন কেবল টিভি নেটওয়ার্কের মাধ্যমে স্যাটেলাইট চ্যানেলের ডিশ লাইনের কার্যক্রম পরিচালনা করেন। বিগত কিছুদিন যাবৎ গোল্ডেন কেবল টিভি নেটওয়ার্কের কার্যক্রম পরিচালিত হওয়া ব্যাংদহা’র পাশ্ববর্তী ফিংড়ী ইউনিয়নের ডিশ ব্যবসায়ী শিমুলবাড়ীয়া গ্রামের মৃত আব্দুস সবুর সরদারের ছেলে ইউসুফ সরদার এবং সুধান্য দাশের ছেলে কংকন মাষ্টার ব্যাংদহা এলাকায় কার্যক্রম পরিচালনায় বাঁধা সৃষ্টি সহ স্থানীয় অপারেটর ফাহিম গাজী এবং গোল্ডেন কেবল টিভি নেটওয়ার্কের পরিনচালক আশফাকুল ইসলাম মুন্নাকে হুমকি দিয়ে আসছিলো। এমনকি ব্যাংদহ এলাকায় পরিচালিত গোল্ডেন কেবল টিভি নেটওয়ার্কের সংযোগ বিছিন্ন করতে বিভিন্ন সময়ে ইউসুফ সরদারের কথামতো কংকন মাষ্টারের নেতৃত্বে একটি চক্র তাদের মুল্যবান ফাইবার তার কেটে দেয়ার পাশাপাশি অন্যান্য মালামাল চুরি করে আসছিলো। সম্প্রতি এসব ঘটনার প্রতিবাদ সহ এমন কর্মকান্ড বন্ধ না করলে আইনের আশ্রয় নেয়া হবে বলে ইউসুফকে জানিয়ে দেয় গোল্ডেন কেবল টিভি নেটওয়ার্কের পরিচালক আশফাকুল ইসলাম মুন্না। এঘটনার পর সুচতুর ইউসুফ সরদার নিজেকে বাঁচানো ও ব্যবসায়িক ফয়দা লুটতে গোল্ডেন কেবল টিভি নেটওয়ার্কের পরিচালক আশফাকুল ইসলাম মুন্না, ব্যংদহার লাইন পরিচালনাকারী ফাহিম গাজীসহ দেবহাটার বিভিন্ন এলাকার আরো কয়েকজন সাধারন গ্রাহককে আসামী করে সাতক্ষীরা সদর থানায় একটি মিথ্যা ও ষড়যন্ত্র মুলোক চাঁদাবাজী মামলা দায়ের করে। পরবর্তীতে ওই মামলায় পুলিশ আশফাকুল ইসলাম মুন্নাকে গ্রেফতার করায় একদিকে যেমন সংকটে পড়েছে গোল্ডেন কেবল টিভি নেটওয়ার্কের কার্যক্রম, অন্যদিকে ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে গোল্ডেন কেবলের স্থানে নিজের ব্যবসা পরিচালনার পরিধি বাড়িয়ে চলেছে ষড়যন্ত্রকারী ইউসুফ সরদার। তাই দায়েরকৃত মিথ্যা চাঁদাবাজী মামলা থেকে রেহাই পেতে সাতক্ষীরা পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমানের কাছে প্রকৃত ঘটনার সুষ্ঠ তদন্তের দাবী জানিয়েছেন ভুক্তভোগী পরিবার সহ গোল্ডেন কেবল টিভি নেটওয়ার্কের অন্যান্য কর্মকর্তা কর্মচারীরা।

Leave a Reply

     এই বিভাগের আরও খবর
error: Content is protected !!
%d bloggers like this: