আজ ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

জেলা ও দায়রা জজ হোসনে আরা আক্তারের ন্যায় কর্মঠ মানুষ হওয়ার আহবান জানালেন পিপি জহুরুল হায়দার

আনিসুর রহমান::

সাতক্ষীরা জেলা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক হোসনে আরা আক্তারের ন্যায় কর্মঠ মানুষ হওয়ার আহবান জানালেন শ্যামনগর সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও পিপি এ্যাডঃ জহুরুল হায়দার। বুধবার সন্ধ্যায় শ্যামনগর উপজেলা প্রেসক্লাব মিলনায়তনে শ্যামনগরে কর্মরত সংবাদকর্মীদের সাথে মতবিনিময়কালে তিনি এ আহবান জানান। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিশেষ পিপি হিসেবে টানা দ্বিতীয় মেয়াদে দায়িত্ব পাওয়ায় স্থানীয় সংবাদকর্মীদের সাথে মতবিনিময়কালে এ আইনজীবি জনপ্রতিনিধি আরও বলেন, মানুষ চিরদিন বেঁচে থাকে না, কিন্তু তার কর্ম বেঁচে থাকে। কর্মই মানুষকে অনন্তকাল বাঁচিয়ে রাখে তাই সামাজিক দায়বদ্ধতার ভিত্তিতে সর্বোচ্চ স্বচ্ছতার সাথে কাজ করে যুগের পর যুগ ধরে বেঁচে থাকা যায়। আলোচনার এক পর্যায়ে সাতক্ষীরার জেলা দায়রা জজ, নারী ও শিশু নির্যাতন ট্রাইব্যুনালের বিচারক হোসনে আরা আক্তারের প্রসংগ টেনে এ জনপ্রতিনিধি বলেন, দুই বছর আগেও সংশ্লিষ্ট আদালতে সাড়ে তিন হাজারেরও বেশী মামলা ‘পেন্ডিং’ ছিল। কিন্তু তার অক্লান্ত পরিশ্রমের ফলে বর্তমানে তা আঠারশ এ নেমে এসেছে। একজন নারী হিসেবে তিনি প্রমান করেছেন ইচ্ছাশক্তি আর নিজের উপর প্রগাঢ় আস্থা থাকলে কোনকিছুই অসম্ভব নয়। দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে তাকে অনুসরন করলে কর্মগুনে আমরা সকলেই মানুষের মনিকোঠায় জায়গা পেয়ে যুগ যুগ বেঁচে থাকতে পারবো। ইতিমধ্যে শ্যামনগর সদর ইউনিয়নসহ পাশের দু’টি ইউনিয়নের কিছু অংশ নিয়ে পৌরসভার গেজেট প্রকাশ হওয়ার বিষয় টেনে জহুরুল হায়দার বলেন, লক্ষ্যে অবিচল থাকলে সাফল্য ধরা দিতে বাধ্য। নানা প্রতিকূলতাকে অতিক্রম করে টানা তিন বছরের অক্লান্ত প্রচেষ্টার পর মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষনার স্বার্থক বাস্তবায়ন করতে পারায় তিনি ভারমুক্ত বলেও জানান। শ্যামনগরকে পৌরসভায় রুপান্তরিত করার ক্ষেত্রে স্থানীয় সংসদ সদস্য এসএম জগলুল হায়দারের অবদানের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, তার সাড়ে তিন বছরের দায়িত্ব পালনকালে শ্যামনগরে উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন এসেছে। গোটা এলাকাকে মাদক ও সন্ত্রাসমুক্ত করার পাশাপাশি এলাকাকে একটি পরিচ্ছন্ন নগরীতে পরিনত করা হয়েছে। ক্রিড়া এবং সংস্কৃতি ক্ষেত্রেও শ্যামনগরকে দেশবাসীর কাছে বিশেষভাবে পরিচিত করতে নানামুখী উদ্যোগ গ্রহন করা হচ্ছে। সংবাদকর্মীদের উদ্দেশ্যে তিনি আরও বলেন, শ্যামনগর দেশের ৩৭৮তম পৌরসভা হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে। সুযোগ পেলে তিনি নুতন এ পৌরসভাকে তিলোত্তলা জনপদে পরিনত করে দেশের মধ্যে সর্বশ্রেষ্ঠ পৌরসভায় পরিনত করবেন। শ্যামনগর ইউনিয়ন পরিষদের সর্বশেষ চেয়ারম্যান হিসেবে ইতিমধ্যে ইতিহাসের অংশ হতে চলেছে উল্লেখ করে এ আইনজীবি জনপ্রতিনিধি বলেন, এলাকাবাসীর ভালোবাসা ও সহযোগীতা তাকে এখানে পৌছে দিয়েছে। মতবিনিময় সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন প্রেসক্লাব সভাপতি আকবর কবীর, সহ-সভাপতি এস কে সিরাজ, সম্পাদক জাহিদ সুমন, রনজিৎ বর্মন, সাংবাদিক শেখ আফজালুর রহমান, আলহাজ¦ মুরাদ হোসেন, আবু সাইদ, ডাঃ তপন বিশ^াস, অধ্যক্ষ জুলফিকার আল মেহেদী, আবু মুছা, জাকির হোসেন প্রমুখ। এর আগে প্রেসক্লাবে পৌছালে সাংবাদিকদের পক্ষ থেকে তাকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানানো হয় #

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর
error: Content is protected !!
%d bloggers like this: