আজ ৭ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২২শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

চাঁদাবাজির সময় পালিয়ে যাওয়া হাকিম চলছে প্রসাশনের নাকের ডগায়

আল মাহফুজ: বেকারীতে সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে চাঁদাবাজির সময় পালিয়ে যাওয়া হাকিম শহরে চলছে প্রশাসনকে তোয়াক্কা না করেই। ফরহাদ হোসেনের কাছে চাঁদা নেয়াও বিভিন্ন ভাবে পত্রপত্রিকায় তার পন্যের সুনাম নষ্ট করার ভয় দেখিয়ে চাঁদা নেওয়ায়, চাঁদাবাজের হোতা টারর্মিনালের শ্রমিক মুনজিতপুরের হাকিম। এবিষয়ে সাতক্ষীরা সদর থানায় একটি মামলা হয়েছে। মামলাটি করেছেন ৭নং ওয়ার্ডের (ইটাগাছা)মেসার্স নিউ চায়না ফুডস এর স্বাত্বাধীকারী মোঃ ফরহাদ হোসেন। যার মামলা নং ৩৫/ তারিখ ১২.১১.১৯/ ধারা ৩৮৫.৩৮৬.৪১৯। মামলার প্রাথমিক তথ্য বিবরণীতে হাকিমের পিতার নাম অঙ্গাত ও গ্রাম সুলতানপুর আছে। কিন্তু হাকিমের পিতার নাম মৃত আব্দুল খালেক ও গ্রাম মুনজিতপু। শুধু চাঁদাবাজির কারণে তার নামে একাধীক বার বিভিন্ন দৈনিক পত্রিায় নিউজ ছাঁপা হয়। তাতেও কোন কাজ না হওয়ায় ক্ষোব প্রকাশ করেছে সচেতন মহল। হাকিমের বাড়ি পাশে এক প্রতিবেশি খবিরুল ইসলাম বলেন, হাকিম আমাদের পাড়ার ছেলে। ছোট বেলা থেকেই হাকিমকে দেখেছি বিভিন্ন ধরণের কাজ করতে। মটরমেকানিক থেকে শুরু করে বাস টার্মিনালের শ্রমিক,পরিবহনের সুপাভাইজার, পাওয়ার হাউজের সামনে ইলেক্ট্রিকের দোকানে মিস্ত্রী, টারমিনালে শ্রমিক নেতা হওয়ার জন্য কয়েক মাস আগে সাংগঠনিক সম্পাদক পদে সতন্ত্র প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করে। কিন্তু হলো না সেখানেও ফেল। হঠাৎ জানতে পারলা ম হাকিম সাংবাদিক হয়েছে। কিন্তু সে প্রাইমারী স্কুলপার করতে পারিনি। সারা জীবন কাজ করেছে মটরশ্রমিক হিসাবে। তাহলে কি করে সাংবাদিক হয়। নিজের নাম লিখতে পারে কি না তাও সন্ধেও আছে। এলাকায় সে নিজেকে চারটি পত্রিকার সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে থাকে। ২নং ওয়ার্ডের একজন আওয়ামী লীগ নেতা আলমগীর হোসেন বলেন, হাকিম ২নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক পদে আছেন। ২০১৯ সালে ১৫ই আগষ্ট শোক দিবস পালন কমিটির প্রধান ছিলেন হাকিম। তার দায়িত্ব ছিল মুনজিতপুর গ্রামে শোক দিবসের মাইক, ব্যানার, ইত্যাদি কিন্তু শোক দিবসের দিন কোন মাইক, বা ব্যানার ছিল না মুনজিতপুর গ্রামে। এতে বেশ সমালোচনার মুখেও পড়েন তিনি। পৌর যুবলীগের সহ-সভাপতি খোসরুজ্জামান বলেন, বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ মত এসব চাঁদাবাজদের আইনের আওতায় এনে কঠি শাস্তি দেয়া। বিগত দিনগুলোতেও দেখেছি বিভিন্ন পত্রিকায় হাকিমের নামে তথ্যনির্ভর সংবাদ প্রকাশ হয়েছে। সংসদ নির্বাচনের সময় হাকিম সব ধরণের প্রার্থীদের থেকে অর্থ্য বানিজ্য করে থাকে। ঐসময় বিভিন্ন পত্রিকার হাকিমের ভৌঁ দৌড় শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশ হয়। সেখানে হাকিম প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সাখে খারাপ আচারণ করে। পরে প্রশাসনের উদ্ধতন কর্মকর্তাদের আগমন দেখে পালিয়ে যায় হাকিম। এ নিয়ে সংবাদ প্রকাশের পর সেই সাংবাদিককেও মারপিটের হুমকি দেয়ে। যুবলীগের এই নেতা বলেন এদের মত চাঁদাবাজদের দল থেকে বহিস্কারের দাবি জানায় সিনিয়র নেতাদের কাছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সাতক্ষীরা সরকারী কলেজ ও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক এক নেতা বলেন, সাতক্ষীরা সদর ২ আসনের সাংসদ ববীর মুক্তিযুদ্ধা মীর মোস্তাক আহম্মেদ রবি মহোদয়ের গ্রাম ও আমার গ্রাম একই। আমরা দেখেছি আওয়ামী লীগ বিরোধী দলে থাকা কালীন সময়ে প্রতি বছর ঠিক সময়ে মাইক ব্যানার, ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হতো। এবারও বিভিন্ন এলাকায় সুন্দর ভাবে শোক দিবস পালন হলেও ব্যতিক্রম ছিল মুনজিতপু গ্রাম। সরকার ক্ষমতায় থাকা কালে আমার গ্রামের সংসদ আমার গ্রামেই নেই মিলাদের ব্যবস্থা এটি খুবই দুঃখ জনক ব্যপার। মাননীয় সংসদ যদি বিষয়টা জানতেন খুব কষ্ট পেতেন। দলের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ মত বিভিন্ন মিডিয়ায় বার বার সংবাদ প্রকশে বলছে দলে অনুপ্রবেশ কারীর প্রয়োজন নেই । বিগত দিন এই হাকিমের নামে যে সব সংবাদ প্রকাশ হয়েছে সে সব সংবাদে স্পাষ্ট ভাবে উল্লেখ আছে হাকিম আগে বিএপির রাজনীতির সাথে যুক্ত ছিল। শহরের একজন ব্যবসায়ী বলেন, হাকিম সাংবাদিক হলো কবে? দেশ এত এগলো কবে যে পড়াশুনা না করেই সাংবাদিক । এদের মত হাকিমদের জন্য মহানপেষা সাংবাদিকতা থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে অনেকেই। কলঙ্কিত হচ্ছে মহানপেষা সাংবাদিকতা। এলাকার তার নামে কেউ কিছু বললে তাদের বিভিন্ন মামলায় ডুকিয়ে দেয়ার ভয় দেখায়। এলাকায় বিভিন্ন জমির দালালি ও টাকার বিনিময়ে মিথ্য সাক্ষি দিয়ে থাকে হাকিম। কোন কাজ না করেও দাপিয়ে বেড়ায় গাড়ি নিয়ে শহরের বিভিন্ন স্থানে। বিভিন্ন সূত্র বলছে তদন্ত ঠিকমত করলে তার আসল চেহারা সাধারণ মানুষের সামনে আসবে। এ বিষয়ে পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাহাদত হোসেন বলেন, হাকিমের নামে তৃনমূলে অনেক অভিযোগ রয়েছে। ১৫ই আগষ্ঠ পালনের টাকা আত্তÍসাত ও বিভিন্ন নির্বাচনে প্রার্থীদের টেকে অর্থবানিজ্য সহ নানা অপকর্মের অভিযোগ রয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ মত দলে কোন চাঁদাবাজ বাটপার ও অনুপ্রবেশ কারীর জায়গা নেই। তিনি বলেন ওয়ার্ড আওয়ামসী লীগের অনেক নেতাকর্মী হাকিমের বহিস্কারের দাবি জানিয়েছেন। সভাপতি ঢাকাতে আছেন তিনি এলে হাকিমের বিষয় আলোচনা করে তাকে বহিস্কার করা হবে বলে জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর
error: Content is protected !!
%d bloggers like this: