আজ ১২ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৮শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

শিক্ষক সিদ্দিকের প্রিয়ভাজন পলিটেকনিক ছাত্র শরিফুজ্জামান শিশু ধর্ষণে গ্রেফতার

নিজস্ব প্রতিবেদক: পাঁচ বছর বয়সী এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে পলিটেকনিক ছাত্র ধর্ষক শরিফুজ্জামানকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। ২৩ নভেম্বর শনিবার দিবাগত গভীর রাতে শিশুটিকে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সাতক্ষীরা সদর থানার কাশেমপুর মালিপাড়ার জননী ছাত্রাবাসে এ ঘটনা ঘটে। তার গ্রেফতারে সাতক্ষীরা পলিটেকনিক ইনাস্টটিউটের ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে স্বস্তি ফিরে এসেছে। শিশুটির পিতা বিজিবি সদস্য ধর্ষকের উপযুক্ত বিচার চেয়েছেন।
ধর্ষণকারী শেখ শরিফুজ্জামান সাতক্ষীরা সরকারি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের ট্যুরিজম এন্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগের সপ্তম সেমিস্টারের ছাত্র। কলারোয়া উপজেলার রামনগর গ্রামের শেখ ওয়াহিদুজ্জামানের ছেলে। কলারোয়া ফাজিল মাদ্রাসা থেকে আলিম পাশ করার পর সাতক্ষীরা সরকারি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে ভর্তি হয়। মেধাবী ছাত্র হওয়ায় ট্যুরিজম এন্ড হসপিটাল হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগের বিভাগীয় প্রধান সিদ্দিক আলী তাকে দিয়ে ক্লাস করাতেন। দুশ্চরিত্র এই শেখ শরিফুজ্জামান ট্যুরিজম এন্ড হসপিটাল হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগের তৃতীয়, চতুর্থ ও পঞ্চম সেমিস্টারের ক্লাস করাতো। শিক্ষকরা ক্লাস না নিয়ে তাকে দিয়ে ক্লাস করানোয় ক্লাসে ছাত্র-ছাত্রীদের উপস্থিতি কমে যায়। ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে অসন্তোষের সৃষ্টি হয়। শরিফুজ্জামান ছাত্রীদের কু-প্রস্তাব দিতো বলেও অভিযোগ ওঠে। কিন্তু শেখ শরিফুজ্জামান বিভাগীয় প্রধান সিদ্দিক আলীর প্রিয়ভাজন হওয়ায় প্রাকটিক্যাল পরীক্ষায় কম নাম্বার পাবার ভয়ে ছাত্র ছাত্রীরা মুখ খুলতে পারতো না। শিশু ধর্ষণের ঘটনায় পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করা ছাত্র ছাত্রীদের মধ্যে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফিরে এসেছে।
শিশুটির পিতা বিজিবিতে চাকরি করেন। বর্তমানে তিনি সিলেটে কর্মরত আছেন। তাদের বাড়ি সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার বুড়িগোয়ালিনী গ্রামে। তার স্ত্রী শিশুদের নিয়ে কাশেমপুর মালিপাড়ায় ভাড়া বাড়িতে থাকেন। এই এলাকায় শেখ শরিফুজ্জামান আগেও ধর্ষণের ঘটনা ঘটায় বলে অভিযোগ রয়েছে।
সাতক্ষীরা সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, শিশুটিকে ফুসলে নিয়ে শেখ শরিফুজ্জামান তার ছাত্রাবাসের কক্ষে নিয়ে ধর্ষণ করে। শিশুটির মাতা এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। শিশুটির পিতা বিজিবি সদস্য ধর্ষকের উপযুক্ত বিচার চেয়েছেন।

Leave a Reply

     এই বিভাগের আরও খবর
error: Content is protected !!
%d bloggers like this: