আজ ১৩ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

আশাশুনির কাদাকাটি আইডিয়াল বালিকা বিদ্যালয় বহুমুখী ঘুর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্রপরিদর্শন করলেন দূর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রনালয়ের যুগ্ম-সচিব ও প্রকল্প পরিচালক আব্দুস সালাম সরকার

বি এম আলাউদ্দীন বিশেষ প্রতিনিধি:

আশাশুনি উপজেলার কাদাকাটি আইডিয়াল মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় বহুমুখী ঘূর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র পরিদর্শন করেন দূর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রনালয়ের যুগ্ম-সচিব ও প্রকল্প পরিচালক আব্দুস সালাম সরকার। রবিবার সন্ধ্যায় তিনি কাদাকাটি আইডিয়াল মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় এ উপস্থিত হয়ে সরজমিনে ভবণটি পরিদর্শন করেন এবং বিদ্যালয়ের শিক্ষকমন্ডলী ও অন্যান্যদের সাথে মতবিনিময় করেন। এসময় প্রকল্পের সহকারী পরিচালক প্রকৌশলী মনিরুজ্জামান সরকার উপস্থিত থেকে প্রকল্পের অনুমোদিত ড্রয়িং ডিজাইন এবং প্রাক্কলন মোতাবেক কাজগুলো সুষ্ঠভাবে সম্পন্ন হয়েছে কি না তা বুঝে নেন। পরিদর্শনকালে, ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান গাজী এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী আবু সাইদ, কাদাকাটি আইডিয়াল বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক একলাছুর রহমান সহ শিক্ষকমন্ডলী ও এলাকাবাসী উপস্থিত ছিলেন। এসময় প্রকল্প পরিচালক আব্দুস সালাম সরকার বলেন, এই তিনতলা বিশিষ্ট ভবনটি নির্মাণের ফলে বিদ্যালয়ের ছাত্রীদের লেখাপড়ার পথ আরও সুগম হয়েছে। এসব বহুমুখী ঘূর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্রে প্রাকৃতিক দূর্যোগের সময় মানুষের জীবন রক্ষার পাশাপাশি তাদের ৩০০টি গবাদী পশুর আশ্রয়ের জন্য একটি করে গবাদী পশুর আশ্রয়কেন্দ্র (ক্যাটেল শেল্টার) নির্মান করা হচ্ছে। বৃষ্টির পানি সংরক্ষণের জন্য প্রতিটি আশ্রয় কেন্দ্রে একটি করে রিজার্ভার ট্যাংকি নির্মাণ করা হয়েছে। দূর্যোগকালীন সময়ে শিশুদের মায়ের দুগ্ধ পানের জন্য আলাদা কক্ষ রাখা হয়েছে। সুপেয় পানির জন্য প্রতিটি আশ্রয় কেন্দ্রে একটি করে গভীর নলকূপের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। মূল সড়কের সাথে যোগাযোগের জন্য সংযোগ সড়কের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। দূর্যোগকালীন সময়ে বিদ্যুৎ না থাকলেও সৌর বিদ্যুতের মাধ্যমে সোলার সিস্টেমের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। তিনি আরও জানান, স্থানীয়ভাবে প্রয়োজন মোতাবেক প্রশাসনের আবেদন এর প্রেক্ষিতে ৩য় পর্যায়ে আরও বহুমুখী ঘূর্নিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র নির্মান করা হবে। কাদাকাটি আইডিয়াল মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আলহাজ্ব একলাছুর রহমান জানান, ভবনটি নির্মানের ফলে শেখ রাসেল মাল্টিমিডিয়া ক্লাস রুম, বিজ্ঞানাগার, সততা ষ্টোর সহ অনেক শ্রেনী কক্ষের সংকুলান হয়েছে। তিনি আরও বলেন, এটি নির্মানের ফলে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল এর সময় ৯৬০ জন লোক দুইদিন এখানে আশ্রয় গ্রহন করতে পেরেছে। এসময় উপস্থিত এলাকাবাসী আশাশুনিতে এরকম আরও কমপক্ষে ১০টি বহুমুখী ঘূর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র নির্মানের জোর দাবী জানান। উল্লেখ্য, দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রনালয়ের অধীনে দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর কর্তৃক আশাশুনিতে দীঘলারাইট আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয় বহুমুখী ঘূর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র, কাদাকাটি আইডিয়াল মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় বহুমুখী ঘূর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র ও নাকনা নিন্ম মাধ্যমিক বিদ্যা নিকেতন বহুমুখী ঘূর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র নির্মান করা হয়েছে। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত ১৩ অক্টোবর আর্ন্তজাতিক দূর্যোগ প্রশমন দিবসে ডিজিটাল পদ্ধতিতে এ ভবন ৩টির শুভ উদ্বোধন করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর
error: Content is protected !!
%d bloggers like this: