আজ ১৩ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

দেবহাটার সখিপুর ইউপি চেয়ারম্যান ফারুক হোসেন রতনের সংবাদ সম্মেলন

দেবহাটা প্রতিনিধি: পরপর দুইবার হামলা চালিয়ে ব্যর্থ হওয়া হত্যাচেষ্টার মদদদাতা ও আসামীরা আবারো ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে দাবী করে সংবাদ সম্মেলন করেছেন দেবহাটা উপজেলা আওয়ামী লীগের সদ্য বিলুপ্ত কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ও সখিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ ফারুক হোসেন রতন। বৃহষ্পতিবার বেলা ১১টায় সখিপুর ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্স ভবনে আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে এমন অভিযোগ করেন তিনি। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে শেখ ফারুক হোসেন রতন বলেন, আমি দীর্ঘ সময় যাবৎ পর্যায়ক্রমে বাংলাদেশ ছাত্রলী, আওয়ামী যুবলীগ দেবহাটা উপজেলা শাখার সভাপতি এবং সর্বশেষ দেবহাটা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও একই সাথে জনগনের ভোটে নির্বাচিত হয়ে সখিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হিসেবে সততা ও নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করছি। আমার সুদীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে বর্তমান সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ডে আমার জীবন উৎসর্গ করে আসছি। পাশাপাশি নাশকতাকারী, সহিংসতাকারী ও বিএনপি-জামায়ত-শিবিরের বিরুদ্ধে আমার অবস্থান সবসময় সুদৃঢ় ছিলো এবং আছে। ২০১৩ সালে সহিংসতাকালীন সময়ে আমাকে প্রকাশ্যে হত্যার চেষ্টা করেছিলো বিএনপি-জামায়তের ক্যাডাররা। আমার মৃত্যু নিশ্চিত ভেবে তারা আমাকে ফেলে গিয়েছিলো। কিন্তু মানুষের দোয়া এবং সাবেক সফল স্বাস্থ্যমন্ত্রী বর্তমান সংসদ সদস্য অধ্যাপক ডাঃ আ.ফ.ম রুহুল হক এমপি ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সার্বিক তত্বাবধানে আমার সু-চিকিৎসা সম্পন্ন হওয়ায় নিশ্চিত মৃত্যুর হাত থেকে আমি ফিরে এসেছি। সেসময়ে আমি প্রানে বেঁচে গেলেও উপজেলা আওয়ামী লীগের অপর সাংগঠনিক সম্পাদক আবু রায়হান, উপজেলা জাতীয় শ্রমিকলীগের সহ-সভাপতি আলমগীর হোসেন ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আজিজকে নৃশংসভাবে হত্যা করেছিলো বিএনপি-জামায়ত শিবিরের ক্যাডাররা। পরবর্তীতে ২০১৮ সালে আবারো হত্যার উদ্দেশ্যে আমাকে গুলি করে সন্ত্রাসীরা। এবারো আমি মৃত্যুর হাত থেকে বেঁচে গিয়েছি। আমার ওপর বারবার হওয়া হামলার ঘটনায় পৃথক মামলা দায়ের করা হয়েছে। এমনকি আটক আসামীদের অনেকেই আদালতে স্বীকারোক্তি মুলোক জবানবন্দি দিয়েছে। আমাকে হত্যাচেষ্টা মামলার স্বীকারোক্তি মুলোক জবানবন্দি দেয়া চার্জশীটভুক্ত সেই আসামীরা বর্তমানে দেবহাটা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান সবুজের ছত্রছায়ায় ঘুরে বেড়াচ্ছে। আমাকে একাধিকবার হত্যার চেষ্টা করার পর আমি আমার ব্যাক্তিগত নিরাপত্তার জন্য লাইসেন্সকৃত আগ্নেয়াস্ত্র রাখার অনুমতি পেয়েছি। এতে করে আমাকে হত্যার চেষ্টাকারীরা আমার কাছ থেকে আগ্নেয়াস্ত্রটি সরানে এবং পুনরায় হামলার পরিকল্পনায় লিপ্ত হয়েছে। যা আমাকে হত্যার আরো একটি সুদুর প্রসারি ষড়যন্ত্র। গত ৫ ফেব্রæয়ারী (বুধবার) আমার সখিপুর ইউনিয়নের মাঘরী বটতলার সামনে নির্মানাধীন একটি রাস্তার নির্মানকাজে দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগের ভিত্তিতে সেখানে উপস্থিত হয়ে দুর্নীতির প্রতিবাদ করতে গেলে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারের লোকজন এবং এলজিইডি’র উপ-সহকারী প্রকৌশলী শেখ ওমর আমার সাথে অসৌজন্য মুলোক আচরন করেন। বিষয়টি আমি উপজেলা প্রকৌশলী রথীন্দ্রনাথ হালদারকে মোবাইলে জানিয়ে সেখান থেকে চলে আসি। অথচ ঘটনাটি ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে আমাকে হত্যা চেষ্টার মদদদাতাদের প্রত্যক্ষ ইন্ধনে বিভিন্ন অনলাইন নিউজ পোর্টালে ‘এলজিইডি’র উপ-প্রকৌশলীকে বন্দুক উচিয়ে গালি দিলেন ইউপি চেয়ারম্যান রতন’ শিরোনামে মিথ্যা ও ভিত্তিহীন তথ্য সম্বলিত ষড়যন্ত্র মুলোক একটি খবর প্রকাশ করিয়ে আমাকে সামাজিকভাবে হেয় পতিপন্নের অপচেষ্টা চালানো হয়েছে। আমি সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এই নেক্কারজনক ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। পাশাপাশি আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার সহ সংশ্লিষ্টদের কাছে দাবী জানাচ্ছি। সংবাদ সম্মেলনকালে দেবহাটা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক মনিরুজ্জামান মনি, কুলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি রুহুল কুদ্দুস, সাধারণ সম্পাদক বিধান চন্দ্র বর্মন, পারুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক সাইফুল ইসলাম, সখিপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হান্নান, সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল কাশেম, নওয়াপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মাহমুদুল হক লাভলু, সাধারণ সম্পাদক আলমগীর হোসেন সাহেব আলী, আওয়ামী লীগ নেতা রবিউল ইসলাম, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মিজানুর রহমান মিন্নুর, সাধারণ সম্পাদক বিজয় ঘোষ, ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুর রহমান সুমন, সাধারণ সম্পাদক এএইচ সোহাগ হোসেন, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মাহবুব আলম খোকন, সাধারণ সম্পাদক লোকমান কবীর, কৃষকলীগের সদস্য সচিব আব্দুল্যাহ হীম, ইউপি সদস্য আকবর আলী সহ বিভিন্ন ইউনিটের অর্ধশতাধিক নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর
error: Content is protected !!
%d bloggers like this: