আজ ৮ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

জেলা যুবদলের সম্মেলনে……. তালা উপজেলা যুবদলে মন্টু ও সেলিমের বিকল্প নেই- জনতার মিছিল


জামালউদ্দীন, সাতক্ষীরা থেকে ঃ
দীর্ঘ জল্পনা কল্পনা শেষে সাতক্ষীরার ঐতিহ্যবাহী তালা উপজেলার জাতীয়তাবাদী দলের অঙ্গসংগঠনের মধ্যে ছাত্র দলের পর যুবদলের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ সম্মেলনে ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতাদের নেতৃত্ব দেখতে চায় তৃণমূলের সমার্থক ও কর্মীরা। গত ১১ সেপ্টেম্বর শুক্রবার সকাল থেকে সাতক্ষীরার অন্যতম বিনোদনকেন্দ্র লেকভিউ এন্ড তুফান কনভেনশন সেন্টারের চারিদিকে নেতাকর্মী ও সমর্থকদের অধীর আগ্রহে আগামীর নেতৃত্বে থাকা পরীক্ষিত নেতাদের মূল্যায়নের জন্য সন্ধ্যাঅবধি বসেছিলেন। ঐ সম্মেলনে সাতক্ষীরার সকল থানা ও পৌর কমিটির যুবদলের প্রার্থীদের সাথে মতবিনিময় করেন বিভাগীয় কমিটির কর্ণধর কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি আলী আকবার চুন্নু, এছাড়াও কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্মসম্পাদক মোঃ মহাসিন মোল্লা, মাহবুব হোসেন পিয়ারু সহ নুরুজ্জামান লিটন, আব্দুল জব্বার, কপিলউদ্দীন ভুইয়া ও শামিম কবিরের উপস্থাপনায় এ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। এ মতবিনিময়ে সবচেয়ে আলোচনার বিষয়বস্তু ছিল তালা উপজেলা যুবদলের আগামীর নেতৃত্বে যাদের দেখা যাবে তাদেরকে নিয়ে জল্পনা কল্পনার যেন অন্ত ছিল না। ৩১ সদস্য বিশিষ্ট আহবায়ক কমিটির মূল ৩টি পদের জন্য ১৫ জন প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেন। যাদের মধ্যে হেভিওয়েট নেতৃত্বে থাকা অনেকের নাম প্রকাশ না করলেও জনসম্মুখে উপজেলায় ২ ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতার নাম বারবার উঠে এসেছে। দীর্ঘদিন ছাত্রদল, যুবদল সহ কয়েকটি অঙ্গসংগঠনের নেতৃত্বে থেকে ১/১১ সহ বর্তমান সরকার হঠাও আন্দোলনে তাদের ভূমিকা নেতাকর্মী ও বিভাগীয় কমিটির মাঝে প্রশংসনীয় হয়েছে। এদের মধ্যে শেখ মোস্তফা হোসেন মন্টু দীর্ঘদিন জাতীয়তাবাদী রাজনৈতিক দলের সাথে সম্পৃক্ত থেকে পদ ও পদবীর জন্য কখনই নিজেকে উপস্থাপন করেনি। বিএনপি’র একজন কর্মী হিসেবে জোরালো ভূমিকা রাখায় আজকে তিনি উপজেলা যুবদলের অন্যতম কর্ণধার হিসেবে বিবেচিত হয়েছেন। সরকার বিরোধী আন্দোলনে বিভিন্ন মামলা হামলার শিকার হয়েও নিজেকে গুটিয়ে নেননি। ঠিক শেখ মোস্তফা হোসেন মন্টুর মতো নবীন এক উদ্যমী নেতা সেলিম বিশ্বাস আজ উপজেলা যুবদলের আর কর্ণধর হিসেবে ভূষিত হয়েছেন। সেলিম বিশ্বাস তালা উপজেলা ছাত্রদলের অন্যতম নেতা ও ইউনিয়ন সভাপতি হিসেবে নিজেকে জিয়ার আদর্শের সৈনিক হিসেবে রাজপথে বিরোধী শক্তিদের এক আতঙ্কের নাম। ১/১১ থেকে শুরু করে ২০১৩-১৪ থেকে বর্তমান পর্যন্ত বিরোধী শক্তিদের হঠাতে ২০ এর অধিক মামলার শিকার হয়ে ৫-৬ বার জেল জুলুমের শিকার হয়েছে। এখনো এই ত্যাগী নেতার নামে ১০টি মামলা চলমান রয়েছে। তৃণমূল পর্যায়ের কর্মীসমর্থক ও নেতারা এ প্রতিবেদককে জানিয়েছেন, যুবদলের নেতৃত্বে এই দুই ব্যক্তির পদচারণা ছাড়া কখনই বর্তমান পরিস্থিতিতে কর্মীসমর্থকদের মন যোগাতে সক্ষম হবে না। আগামীর বন্ধুর পথ পাড়ি দিতে শেখ মোস্তফা হোসেন মন্টু ও সেলিম বিশ্বাসের বিকল্প নেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর
error: Content is protected !!
%d bloggers like this: